A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: fopen(/var/cpanel/php/sessions/ea-php73/ci_session41c9e226ab8aecb9d77b5931d81d8adf9833f9a2): failed to open stream: No space left on device

Filename: drivers/Session_files_driver.php

Line Number: 174

Backtrace:

File: /home/xpress24/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: Warning

Message: session_start(): Failed to read session data: user (path: /var/cpanel/php/sessions/ea-php73)

Filename: Session/Session.php

Line Number: 143

Backtrace:

File: /home/xpress24/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

‘আমরা করব জয়’ অনুষ্ঠানে হাত-পা ছাড়াই জন্ম নেয়া সেই লিতুন জিরা
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১



 অনলাইন ডেস্ক

Shares: 148

আপডেট: ২০২১-০১-০৭





‘আমরা করব জয়’ অনুষ্ঠানে হাত-পা ছাড়াই জন্ম নেয়া সেই লিতুন জিরা

‘আমরা করব জয়’ অনুষ্ঠানে হাত-পা ছাড়াই জন্ম নেয়া সেই লিতুন জিরা

যশোরের মনিরামপুরে হাত-পা ছাড়াই জন্ম নেয়া সেই লিতুন জিরা এবার খুলনা বেতারে গান ও কবিতা আবৃত্তির সুযোগ পেয়েছে।

শুক্রবার ‘আমরা করব জয়’ অনুষ্ঠানে বিকাল ৫টা ৩৫ মিনিটে খুলনা বেতার থেকে লিতুন জিরার গান ও কবিতা আবৃত্তি প্রচারিত হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।

লিতুন জিরা উপজেলার শেখপাড়া খানপুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের মেয়ে। শিক্ষা, খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক চর্চায় লিতুন জিরার একাগ্রতা আর অদম্য ইচ্ছাশক্তির কাছে তার শারীরিক প্রতিবন্ধকতা হার মেনেছে।

অদম্য ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমে সব বাধা টপকে সমাজের ৮-১০ জন স্বাভাবিক শিশুর মতোই এগিয়ে চলছে লিতুন জিরা।

গত সোমবার খুলনা বেতারে গান গেয়ে ও কবিতা আবৃত্তি করে উপস্থিত সবার মন জয় করে নেয় লিতুন জিরা। এরপর প্রতিবন্ধীদের নিয়ে খুলনা বেতারে প্রচারিত ‘আমরা করব জয়’ অনুষ্ঠানে ডাক পায় সে।

খুলনা বেতারের সহকারী পরিচালক শায়লা শারমিন স্নিগ্ধা লিতুনকে নিয়ে অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, হাত-পা ছাড়াই জন্ম নেয়া এমন একটি বাচ্চা শত প্রতিকূলতাকে ছাপিয়ে মনের জোরে এগিয়ে যাচ্ছে, সত্যিই অবাক ব্যাপার। লিতুন জিরা এক অনুপ্রেরণার নাম। তার প্রবল ইচ্ছাশক্তি দেখে একদিকে যেমন অভিভূত হয়েছি, অপরদিকে খুব কষ্টও লাগছে।

এর আগে হাত-পা ছাড়াই জন্ম নেয়া লিতুন জিরা মুখে ভর দিয়ে লিখে ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত পিইসি পরীক্ষায় সব বিষয়ে লেটার মার্কস নিয়ে ৫৭১ নম্বর পায় এবং বৃত্তি লাভ করে; যা দেশ ও দেশের বাইরে বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

লিতুন জিরার বাবা হাবিবুর রহমান এলাকার একটি কলেজে প্রভাষক পদে চাকরি করেন। কিন্তু এখনও কলেজটি এমপিওভুক্ত হয়নি। শত অভাব-অনটনের মধ্যেও লিতুন জিরার পড়ালেখা থেমে নেই।

হাবিবুর রহমান বলেন, জন্মের পর লিতুন জিরার ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত ছিলাম। অনেক রাত স্বামী-স্ত্রী কেঁদেছি। কিন্তু এখন দুই সন্তানের মধ্যে লিতুন জিরাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখি।